একুশে ফেব্রুয়ারি রচনা প্রতিযোগিতা

0
267

একুশে ফেব্রুয়ারি রচনা প্রতিযোগিতা : ২১শে ফেব্রুয়ারি আমাদের জাতীয় জীবনে একটি লাল অক্ষরের দিন। ১৯৫২ সালের এই দিনে মাতৃভাষার স্বার্থ রক্ষায় মাতৃভূমির বীর সন্তানেরা প্রাণ দিয়েছিলেন। সেই থেকে আমরা এই দিনটিকে ‘শহীদ দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছি। কিন্তু ১৯৯৯ সালে ইউনেস্কো এই দিনটিকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। এই ঘোষণা একটি জাতীয় উদযাপনকে একটি আন্তর্জাতিক অনুষ্ঠানে পরিণত করেছে। ইউনেস্কোর ঘোষণায় দিনটিতে যোগ হয়েছে নতুন মাত্রা।

একুশে ফেব্রুয়ারি রচনা

একুশে ফেব্রুয়ারি রচনা

পটভূমি

একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের ইতিহাসে লাল অক্ষরের দিন। এখন আমরা সারাদেশে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন করছি। 1952 সালের আগে, এটি বছরের অন্যান্য তারিখের মতো একটি তারিখ ছিল। কিন্তু 1952 সালের 21শে ফেব্রুয়ারিতে ঔপনিবেশিক শাসকরা বন্দুকের নলে বাংলাদেশীদের বাংলা ভাষা আন্দোলনকে চূর্ণ করতে চেয়েছিল। কিন্তু কিছু শহীদের রক্তের মূল্য বলে তারা তা করতে ব্যর্থ হয়েছে। ভাষা শহীদেরা আমাদের মাতৃভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন। বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের জন্ম হয়েছে শহীদদের রক্তে। এই জাতীয়তাবাদের পরিসমাপ্তি ঘটে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতায়।

দিনের গুরুত্বপূর্ণ

একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের মনে অনেকের স্মৃতি ফিরিয়ে আনে। তারা আমাদের ভাগ্য গঠন করেছে এবং আমাদের নিজেদেরকে আবিষ্কার করতে সাহায্য করেছে।

কিভাবে দিবসটি পালন করা হয়

আজিমপুর কবরস্থানে সব বয়সের বাংলাদেশিরা আজিমপুর কবরস্থানে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমারি ভুলিতে পরী’ গানটি গেয়ে মাজার জিয়ারত করে। আমরা মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করি এবং ‘সুরা ফাতেহা’ পাঠ করি। কেন্দ্রীয় শহীদ খনি আলোয় প্লাবিত হয়। দিনের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে একটি সিম্পোজিয়াম, সেমিনার, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সংগীতানুষ্ঠান এবং আবৃত্তি।

মাতৃভাষা স্বীকৃতি

17 ই নভেম্বর, 1999 তারিখে, ইউএনও বিশ্বে প্রায় 1000 মাতৃভাষাকে সম্মান জানাতে 21 ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে ঘোষণা করে। বিশ্বের ১৮৮টি দেশ প্রতি বছর ২১ ফেব্রুয়ারি এই দিবসটি পালন করে। আমরা গর্বিত যে আমাদের বাংলা সারা বিশ্বে স্বীকৃতি পেয়েছে।

উপসংহার

এই পালন মাতৃভাষার প্রতি আমাদের ভালোবাসার নিদর্শন। আসুন আমরা সকল প্রকার শোষণ-নিপীড়ন-অবিচার মুক্ত একটি সমৃদ্ধ সমাজ গড়তে একসাথে কাজ করি। ইউনিসেফ-এ এটা প্রত্যেক বাঙালির জন্য অনেক আনন্দের।

উপসংহার

তো বন্ধুরা আশাকরছি যে আপনার আমাদের একুশে ফেব্রুয়ারি রচনা প্রতিযোগিতা এই আর্টিকেলে টি পছন্দ হয়েছে। আপনার যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে আপনার বন্ধু এবং প্রিয়জন দেড় সাথে শেয়ার করুন। ধন্যবাদ!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here